খোলা আকাশের নিচে কেউ কেউ – একটা ঘাস ফড়িঙের জীবন কাটিয়ে দেয় –
পায়ের তলায় শিশিরদানা মাড়িয়ে – শুয়ে থাকে শীতের বিছানায়।

জীবন এমন হবার কথা ছিল না, এমন নিঃসঙ্গ আর তরঙ্গ বিহীন
জীবনের একটা উচ্ছাস ছিল, হাসি-কান্না আর প্রেমের কথা ছিল-

এভাবে দুঃখ বয়ে বেড়ানো… কাঁধে মৃত লাশের মত করে নয়-
আজন্ম পাপের বোঝা আর অতীতের শব হয়ে নয়-
জীবনের একটা উষ্ণতা ছিল,
দুরন্ত শৈশব,
অবাধ্য কৈশোর আর,
বুনো ঘোড়ার মত যৌবন হবার কথা ছিল।

আমাদের অনেকদূর হেঁটে যাবার প্রতিজ্ঞা ছিল
বেঁচে থাকার তাগিদে গ্রাম, লোকালয় আর শহর বদলানোর ছিল-
প্রয়োজনে একটা গোটা দেশ!

হায় জীবন!

এভাবেও কি বেঁচে থাকা হয়?
এভাবে জীবন্মৃত হয়ে
অন্যের ছায়ায় অন্য কারো ইচ্ছা হয়ে?

প্রয়োজনে একশো বছরের বদলে এক হাজার বছর অপেক্ষায় থাকব –
তুবুও একদিন নিজের মত করে – জীবনের উচ্ছাসে বেঁচে থাকতে চাই।

দু-হাত ভরে চাঁদের জ্যোৎস্নায় চুমুক দিতে চাই তরল বিষে-
মর্ত্য থেকে স্বর্গে যাবার আগেই আমি অমৃত চাই, দেবতা হতে চাই না-
শুধু মানুষ হয়ে একদিন এই নশ্বর আনন্দের সাথী হতে চাই।

মন্তব্য