আমার ফিরতে বড় দেরি হয়ে যায়,
সব পাখি ঘরে ফেরে, আমি শুধু নীড় হারাই
আমার দেখা হয়না মমতায় বিছানো শিউলি ফুল-
আমি বুনো অর্কিডের আগুন বর্ণে মাতাল হই
হারিয়ে ফেলি শিমুলের ডাল আর কাঁঠাল চাপার সুবাস।

সবাই ঘরে ফেরে, আমি শুধু বিস্মৃত হই
আমার ভাঙনের সুরে আমি অ্যাটলান্টিক সমুদ্র তুলে আনতে গিয়ে-
হারিয়ে ফেলি শ্যাওলা দিঘির ঘাট।

আমার ফেরা হয় না-
আমি হারিয়ে যাই গ্রীক পুরানে, দেবতা আইসিসে
শুধু হারিয়ে ফেলি আমার উর্বর মাটির সোঁদা গন্ধ।

আবার যদি ফিরে আসি, যদি ফেরা হয় চেনা বটের ছায়ায়
তবে মানুষ করে দিও,
দেয়াল নয়, ভেঙ্গে পড়া বাতাস নয় …
এ মাটির একটা ঘাসফুল করে রেখে দিও পায়ের তলায়।

কবিতা

এলোমেলো যাপিত জীবন 1
এলোমেলো যাপিত জীবন

এলোমেলো যাপিত জীবন

এখানে যখন তখন সন্ধ্যা নামে
নামে যমদূতের মত কালো নিকষ আঁধার
এখানে রাতগুলো ভোর না হয়ে কুয়াশায় ঢেকে যায় দিগন্ত
ঘাসফুলের বুকে জমে যায় আকাশের কান্না।

আবার দেখা হবে 3
আবার দেখা হবে

আবার দেখা হবে

আমাদের আবার দেখা হবে-
অনেক কাজ আছে বলেও দাঁড়িয়ে যাবো আরো অনেক্ষন
কারন এই বয়েসটায় আমাদের কোথাও যাবার থাকে না
নির্দিষ্ট করে কাউকে ভালোবাসার থাকে না
আমরা তখন বাহুডোরে কল্পনা করি সহস্র প্রেয়সীর... ।

গল্প

হোমো সুপিরিওর

মানুষের পরের প্রজাতি যারা এই যুদ্ধ-বিগ্রহের পৃথিবীকে নিজেদের নিয়ন্ত্রনে নিয়ে নেবে, তারা সময়ের পেছনে গিয়ে নিজেদের অনুকুলে টাইম-স্পেসকে পরিবর্তনের চেষ্টা করে যাচ্ছে বারংবার।

হোমো সুপিরিওর

ঈশ্বরের অশ্রু

সিড়িটা অনেক লম্বা - প্রথমে মনে হয়েছিল শ-খানেক হবে ধাপ। নীলা গুনে গুনে দেখছিল, কিন্তু একসময় হতাশ হয়ে সে গোনা ছেড়ে দিল। হাজারের উপরে গোনা হয়ে গেছে...। প্রতি ধাপে একটা করে মেয়ে দাঁড়িয়ে আছে।  সবাই ঈশ্বরের সামনে নিজের বিচার দেবার জন্য দাঁড়িয়ে। নীলার...

ঈশ্বরের অশ্রু 7

নাম বলা হয়নি –

।। এক ।। সিঁড়ি দিয়ে তিন তলায় উঠতে উঠতে মাহিরের চোখ আটকে গেল মেয়েটার দিকে। মেয়েটা নামছে, মাহির উঠছে। মাহির একটা হার্টবিট মিস করল। বুকের ভেতরটা মনে হচ্চে কেউ খামচে ধরেছে হঠাত করে। রেলিং এর পাশে সরে গিয়ে নিচে নামার জায়গা ছেড়ে দিল মেয়েটিকে মাহির। চোখ তখনও মেয়েটির দিকে।...

নাম বলা হয়নি - 8

Pin It on Pinterest