কবিতাসাহিত্য

এখনো অভিমান –

বিষন্ন বাতাসে গোধূলির রঙ্গিন –
মুছে যাক জীবন প্রদীপ, সূর্যের দিন।

করতলে ভাঙে কদমের ফুল, পায়ের নিচে সর্ষে দানা,
হাসতে মানা, গাইতে মানা-
এক’জীবন সন্ধ্যায় চোখের বুকে ডুবতে মানা।

একদিন শহরজুড়ে হলুদের মিছিলে মিলিয়ে ছিলাম কাঁধ
সোল্লাসে উল্লাসে বাঁধ ভাঙ্গার স্রোতে মিশেছি অবাধ।

আমাদের হাতে আর আঙুলে জড়ায় না এখন –
ব্যস্ত মন, চেনা গলিতে অচেনা সময়ের বিচরন।

অচেনা চেহারা নয়, অচেনা হয়েছে মন,
পায়ের নিচে নতুন পথ আসেনি এসেছে অভিমান
বাতাসে হাস্নাহেনা ভাসে না, আসে না জুই-চামেলী
রৌদ্র খরতাপে শুকায় না চোখের গলি-

আমরা আরো প্রাচীন হয়েছি, শীতে জড়োসড়ো
অনেক গভীরে ডুব দিয়ে ঘৃনা তুলে আনি বড়(ও)।

এখানে তাই গোধুলি-ই থাক, অভিমানের বুড়োরা ওম পোহাক
বাকি সব সূর্যের মত নিভে যাক, নিভে যাক।

মন্তব্য