যদি হারিয়ে যাই এই ভীড়ের মাঝে –
বেলা শেষে ফুরিয়ে যাই সাঁঝে
জেনো ভালোবাসা মালা গেঁথে-
সাজিয়েছি ভুল সময়ে, ভুল দেয়ালে।

অর্ধেক মানুষ হয়ে আর অর্ধেক দেবতার
আমাদের সময় ভুল ছিল, ভুল বদ্ধ দুয়ার।
দুয়ারে দাঁড়ায়ে পথিক হাঁকে –
ওহে, বেলা শেষ, চলে যেত হবে আজ সাঁঝে।

কত শত পদচিহ্ন, কত মায়া, কত জল
দুয়ারে যাযবর দাঁড়ায়ে –
যেতে হবে আজ বেলা শেষে… চল।

আমাদের ক্ষনিক ভালোবাসা, আধখানি জীবন,
ইটের পরে ইট গেঁথে, ভালোবাসা বানাইনি
বানিয়েছি পাষান, জমিয়েছি জঞ্জাল,
যা করেছি চাইনি তার আধেক,
যা চেয়েছি পাইনি তারও আধেক,
তবু বেলা শেষে পথিক দাঁড়ায়ে দুয়ারে …।

ওহে… সময় হয়েছে এবার চল…।
যেতে হবে মেলা দূর…
সেই গঞ্জের হাঁট পেরিয়ে বটতলা…
তারপর বিলের সীমানা, এরপর একটা বড় নদী,
এক ডুব দিলেই অতলে ডুবে যাবি।

এই ভীড় থেকে সরে টুপ করে ডুবে যাবি…
কি পেলি আর কি পেলি না … হিসেব করে নিবি।
বেলা শেষের সাঁঝে … সবাইকে যেতে হবে,
দেরি করিসনে, দুয়ারে তোর মহাকালের ডিঙ্গি দাঁড়ায়ে।

যদি হারিয়ে যাই এভাবেই, জেনো ললাটে অশ্রু ছিল না,
নাই খেদ, ভালোবাসা, অভিমান, আর ঘৃনা।
আমি মহাকালের পথিক হয়েছি,
এ রাস্তা নিয়তির, কি ভীষন ভাবে চেনা।

লেখালেখির শুরু সেই স্কুলে থাকতেই। তখন বিভিন্ন দেয়ালিকা আর কিশোর পত্রিকায় নিয়মিত লিখতাম। এরপর দীর্ঘ বিরতি দিয়ে আবার ফেরা লেখালেখিতে। মূদ্রনে ভীষন অনীহা আমার। প্রযুক্তি সেই সুবিধা দিয়েছে আমাকে। প্রযুক্তি প্রেমিক বলে আমার লেখায় বারবার চলে আসে এই বিষয়গুলো। আমার সাহিত্য ভাবনা, ঘোরাঘুরি আর কিছু ছবি নিয়ে। একদম সাদামাটা একজন মানুষের মনের কোনে কি উঁকি দেয়?

Leave a Reply