Shazam – হলিউড মুভি রিভিউ

Shazam - হলিউড মুভি রিভিউ
  • কাহিনী
  • অভিনয়
  • মিউজিক
  • সিনেমেটোগ্রাফী
  • গ্রাফিক্স
4.3

Shazam - এই মুভি আপনার ভালো লাগতে বাধ্য

সুপার হিরো মুভি কে না পছন্দ করে? বেশিরভাগ সুপার হিরো মুভি যদিও সাই-ফাই ক্যাটাগরিতে ফেলে দেয়া হয়, সেখানে Shazam একটু আলাদা। এই মুভির সুপার হিরো পাওয়ার আসে ম্যাজিক থেকে। এখানে সাই-ফাই কোন ব্যাখ্যা নেই।

যারা কমিক্স ভক্ত আছেন তারা অনেকেই Shazam এবং Captain Marvel এর ইতিহাস জেনে থাকবেন। অনেকের কাছেই তাই এবছর দুটো Captain Marvel মুভি মুক্তি পেয়েছে বলে মনে হবে।

সে যাই হোক, Shazam পরিবার ,বন্ধু-বান্ধব এবং সবাইকে নিয়ে দেখার মত অসাধারন একটা সুপার হিরো মুভি। সময় এবং টিকিটের টাকা দুটোই উসুল।

আমার মনে হয় সবাই Shazam মুভি মোটামুটি দেখে ফেলেছে, আর যারা এখনো দেখেননি, তাদের জন্য উপদেশ দেরি না করে মুভি দেখে ফেলুন। অনেকদিন পরে একটা সুপার হিরো মুভিতে হিউমার, একশন এবং মনের মত মিউজিক পেলাম। এককথায় অসধারন।

shazam

একটু কাহিনী সংক্ষেপ বলে নেয়া যাক –

১৪ বছরের বিলি ব্যাটসন অপ্রত্যাশিত ভাবে একটা ম্যাজিক পাওয়ার পেয়ে যায়। কমিক্স এবং মুভি অনুযায়ী যাদুকর Shazam তার শক্তি হস্তান্তর করার জন্য স্বচ্ছ হৃদয়ের কাউকে খুঁজছিলেন এবং বিলি ব্যাটসন হয় সেই সৌভাগ্যবান ব্যাক্তি।

বিলিকে শুধু Shazam শব্দটা উচ্চারন করতে হোত আর বিজলির চমকের সাথে সাথে সে পরিনত হত পূর্নবয়স্ক এক শক্তিশালী সুপার হিরোতে।

কিন্তু তার বয়স মাত্র ১৪, অপরিনত এক কিশোর যখন এই রকম ক্ষমতার অধিকারী হয় তখন কি হতে পারে? বিলিও নিজের মত করে তার এই নতুন শক্তি গুলোকে উপভোগ করা শুরু করে। এইখানেই শুরু হয় যত মজা আর হাস্যরসের।

বিলিকে কিন্তু যত দ্রুত সম্ভব তার এই শক্তি নিয়ন্ত্রন এবং ব্যবহার জানতে হবে। আরো বুঝতে হবে ” Withe Great Power Comes Great Responsibility” :).

কিন্তু… … … আমাদের বিলি কিন্তু মুভির শেষ পর্যন্ত ১৪ বছরের সেই কিশোরই রয়ে যায়।

মার্ভেল স্টুডিওর Captain Marvel এবং ডিসি এন্টারটেইনমেন্টের Shazam উভয় হিরোই কিন্তু একসময় Captain Marvel নামে পরিচিত ছিল।

আসলে বলতে গেলে মার্ভেলের “Captain Marvel” এর আগেই কমিক্সে Shazam এর আবির্ভাব ঘটে আর ২০১২ এর আগে মার্ভেল এর সুপার হিরোর নাম ক্যাপ্টেন মার্ভেল ও ছিল না।

পেছনের কাহিনী ঘাটতে গেলে কিন্তু অনেক দুর যেতে হবে। তবেই আপনি বুঝতে পারবেন মার্বেল স্টুডিওর হিরোর নাম কিভাবে ক্যাপ্টেন মার্ভেল আর ডিসি এন্টারটেইনমেন্ট এর হিরো নিজেকে শ্যাজাম বলে পরিচয় দিচ্ছে।

এর পেছনে রয়েছে সুপারম্যান কমিক্স এবং এর সাথে জড়িত ডিসি কমিক্সের মাদার তিনটি কোম্পানি। যদিও তখন ডিসি কমিক্স তার বর্তমান নামে পরিচিত ছিল না।

১৯৩৯ সাল, সুপারম্যান তখন একটা হিট কমিক্স এবং তাকে টেক্কা দেয়ার জন্য বাকি কমিক্স কোম্পানি গুলো নিজেদের আলদা আলাদা সুপার হিরো মাঠে নামিয়েছিল।

সেই সাথে এই কোম্পানি গুলো জড়িয়ে যায় কপিরাইট এবং ট্রেড মার্কের মামলায়। শেষ পর্যন্ত ডিসি মামলায় যেতে এবং বোঝাতে সক্ষম হয় Captain Marvel যা বর্তমানে Shazam ( Fawcett Comics ) আসলে সুপারম্যানরই একটা কপি।

তখন Fawcett Comics ক্যাপ্টেন মার্ভেল (শ্যাজাম) প্রকাশ করত এবং ১৯৫৩ সালের দিকে তারা কমিক্স প্রকাশ করাই বন্ধ করে দেয়।

মূলত তখন ক্যাপ্টেন মার্ভেল বা শ্যাজাম এর কপিরাইট কারো ছিল না।

এরপর দৃশ্যপটে আসে মার্ভেল কমিক্স। যদিও তারা প্রথমে ডেয়ার ডেভিল নামে আরেকটা কমিক্স বের করেছিল। কিন্তু তারা ক্যাপ্টেন মার্ভেল বের করার আগেই আরেক কোম্পানি M.F. Enterprises ক্যাপ্টেন মার্ভেল নামে আরেক সুপারহিরোর কমিক্স বের করে।

এই সুপারহিরো আসলে ছিল একটা এন্ড্রয়েড যে নিজের হাত পা খুলে মারতে পারত। সে মারার সময় বলত স্প্লিট (SPLIT)।

মার্ভেল কমিক্সের কিন্তু এটা পছন্দ হচ্ছিল না।

১৯৬৭ এর দিকে মার্ভেল কমিক্স দ্রুততার সাথে Captain Marvel নামে তাদের নিজস্ব সুপারহিরো লঞ্চ করে এবং তখন থেকেই এটা তাদের ট্রেডমার্কে পরিনত হয়।

এখনো পর্যন্ত সব ঠিক ছিল কিন্তু হঠাত করে যখন আসল ক্যাপ্টেন মার্ভেল আবার মার্কেটে নামল তখন লাগল ঝামেলা। কপিরাইট আর ট্রেডমার্কের ঝামেলা এড়িয়ে ডিসি কমিক্স যখন Fawcett Comics এর সাথে ডিল করে তাদের সুপারহিরো গুলোকে আবার মাঠে নামাল কিন্তু মার্ভেল এর জন্য অরিজিনাল Captain Marvel আর আগের নামে প্রকাশ করা যাচ্ছিল না।

যদিও কমিক্সের ভেতরে তখনও তাকে ডাকা হত ক্যাপ্টেন মার্ভেল হিসেবে কিন্তু বাইরের মলাটে তখন লেখা থাকত SHAZAM, সেই ম্যাজিক ওয়ার্ড যা বলে বিলি ব্যাটসন নিজেকে রুপান্তরিত করত সুপার হিরোতে।

Shazam - হলিউড মুভি রিভিউ 1

অনেক গল্প বলে ফেললাম, সংক্ষেপে বলার চেষ্টা করেছি কিভাবে ডিসি কমিক্সের ভেতরে SHAZAM আসল এবং পরের পর্বে THE ROCK খ্যাত ডোয়েন জনসন Shazam এর নেমেসিস Black Adam হিসেবে আসার সম্ভাবনা রয়েছে।

Shazam মুভির শেষদিকে হঠাত করে সুপারম্যানের নীল দেখে তাই চমকে যাবেন না, কমিক্সে এরা দুজন একসাথেই অনেকবার আবির্ভুত হয়েছে এবং কমিক্স থেকে মুভি করার যে প্রবনতা হলিউডে দেখা যাচ্ছে তাতে DC Extended Universe এ জাস্টিস লীগ এ ও Shazam কে দেখলে চমকে যাবেন না।

Shazam মুভিতে মুলত কিভাবে সুপার হিরো হয়ে ওঠে বিলি ব্যাটসন তাই মূল উপজীব্য। তার পরিবার ব্যক্তিগত বেদনা এবং একজন কিশোরের মনের চঞ্চলতাই প্রকাশ পেয়েছে ভীষনভাবে এই ছবিতে।

Shazam এর চির শুত্রু Black Adam কে পরের সিক্যুয়াল এর জন্য তুলে রাখা হয়েছে। মুভির মিউজিক অসাধারন। বিলির চরিত্রের অভিনয় করা Zachary Levi অসাধারন পারফরম্যান্স দেখিয়েছেন।

মাঝে মাঝে আমার মনে হচ্ছিল তার অভিনয় ডেডপুল এর ভুমিকায় জ্যাক রেনল্ডস এর থেকেও ভালো হয়েছে।

Leave a Reply